প্রেমের প্রকাশ – সন্তোষ উৎসুক

প্রেমের প্রকাশ

সন্তোষ উৎসুক

আজ আবারও লিখতে হবে বিদেশীদের চমকে দেওয়ার অনন্য জরিপ। জানি না তাদের কত সময় আছে যারা এই ধরনের জরিপ চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা জরিপ করতে থাকে শুধু সেই বিষয়গুলো নিয়ে যেগুলো সম্পর্কে বিশ্ব জানে। তার একটা চমৎকার স্টাইল আছে। প্রেম সম্পর্কে বলা হয় যে কখন, কোথায়, কার সাথে এবং কোন পরিস্থিতিতে এটি ঘটবে তা আমরা বলতে পারি না। ভালবাসা প্রকাশ করা কতই না কঠিন হয়ে যায় যে জীবন সম্পূর্ণ হয়ে গেলেও এই কাজটি থেকে যায়। এমনও হয় যে প্রথম দর্শনেই প্রেম হয়ে যায় এবং ব্যক্তি অস্থির হয়ে পড়ে।

অন্যদিকে, প্রেমের বিশেষ বিশেষজ্ঞ স্কটল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের জরিপকারীদের মতে, নতুন সম্পর্কের মধ্যে প্রেম প্রকাশ করতে ১০৭ দিন সময় লাগে। ইংরেজি শৈলী সম্পর্কে কি বলতে হবে! মজার ব্যাপার হলো সেখানকার নারীদেরও লজ্জার স্বাভাবিক অনুভূতি রয়েছে। তারা প্রথমে তাদের ভালবাসা প্রকাশ করে না। মজার বিষয় হলো, যারা এত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে জরিপ পরিচালনা করেছেন, তারা শুধু নিজ দেশের নয়, আরও ছয়টি দেশের তিন হাজার তরুণকে জরিপের অংশ বানিয়েছেন এবং নতুন স্বাদের ফলাফল উপস্থাপন করেছেন।

এই জরিপটি কেউ পছন্দ করুক বা না করুক, একটি জিনিস অবশ্যই আবারও প্রকাশ পেয়েছে যে স্কটল্যান্ডের লোকেরা যা কিছু করে না কেন, তারা সম্পূর্ণ স্বাচ্ছন্দ্য এবং একাগ্রতার সাথে করে। তাদের কাছে একে অপরের সঙ্গ, খাওয়া-দাওয়া এবং ভ্রমণ জীবনের অন্যান্য অনেক কিছুর চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। দেহের মিলন বা বিবাহ কখনই মানুষের সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি। সঙ্গীকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করার পর তিনি তার ভালোবাসা প্রকাশ করেন এবং বিয়ে করেন। এটা ভিন্ন বিষয় যে এই জরিপটি পশ্চিমা সমাজের উপর একটি ব্যঙ্গ বলে মনে হয়।

এমনকি প্রেমের প্রথম চিঠি লিখতেও সময় লাগে। এখন এখানেও অনেক পরিবর্তন এসেছে, ভালোবাসার কথা গুলো ফালতু। ঘৃণার কথাও ভাববেন না। এখানে এমন জরিপ করার কথা কেউ ভাবতেও পারে না। যদি মেয়েটি উপহারে সম্মত হয় তবে এটি প্রেমের ঘোষণা এবং স্বীকারোক্তি হিসাবে বিবেচিত হয়। বিয়ের দিন যতই এগিয়ে আসছে, দামি উপহারের মাইলফলক আসতেই থাকে। অন্য কোন আকর্ষণীয় ও সমৃদ্ধ গন্তব্য দৃশ্যমান হলে ইজহার সেদিকেই মোড় নেয়। অভিব্যক্তি পেশাদার এবং ব্যবহারিক হয়ে ওঠে। শুধু ভালোবাসায় জীবন চলে না। প্রেম প্রকাশ করতে সময় লাগুক বা না লাগুক, প্রেমের ব্যবসা করতে সময় লাগে।

প্রথমে বিয়ে হয়েছিল, তারপর প্রেম হয়েছিল, সেটা হয়েছে কি না, সমঝোতা করতে সময় লেগেছে। ঘনিষ্ঠতা না থাকলেও যুগ যুগ ধরে একসঙ্গে থাকতেন তারা। জীবনের সমস্যাগুলো জলের মতো বয়ে যেত। তিনি তার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে থাকেন এবং জীবন তাকে শেখাতে থাকে। বৃদ্ধ স্বামী-স্ত্রী এখনও একই পথ অনুসরণ করছেন। যাইহোক, এখন জীবন এতটাই বাণিজ্যিক হয়ে উঠেছে যে সমাজকে অন্ধকারে আলো দেখান এমন ভবিষ্যৎবিদরা বলছেন প্রেমে পড়ার আগে রাশিফল ​​পরীক্ষা করা উচিত। মনে হয় ব্রিটিশদের দ্বারা পরিচালিত জরিপটি তাদের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিল।

(Feed Source: prabhasakshi.com)