কবিতা

ঈশানকোণ একটি সাহিত্যের ওয়েবজিন শরৎ পর্যায় অগাস্ট-সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং 

দেবাশিস মুখোপাধ্যায়ের কবিতা  

অক্ষর লিপি 


জানালা উঁকি দিচ্ছে বৃষ্টি দেখতে আর সফেদ বলাকারা অখিলবন্ধু ছেড়ে কালো মেঘেদের সাথে সেরে নিচ্ছে রাখি বন্ধন


নরম মাটি পা ছাপ চাইলে জুতো খুলে রাখছে কেউ আর ফর্সা ডিমের আলতা আভা আভাস জাগাচ্ছে চোখের দোষের


সেবক পাতাগুলি তার পা ধুইয়ে 

ঘরে তুললে দেবীকে অপলক দেখি ভিতরের সব লক খুলে পলগুলি এভাবেই চলে যায় তাই না!


নাবাল নয়নে ভেসে যাচ্ছে নাউ

কাগজের নৌটঙ্কি হাওয়া ছাড়াই



2

অক্ষর লিপি 


বসন্ত এসেছে ঘরে বর্ষায়। সায় নেই তবুও তাকে নিয়ে আছি।

ছিদ্রগুলি ধরা পড়ে গেলে বর্ষা 

বিছানা পেয়েছে


ছেঁড়া ছেঁড়া মেঘে সূর্য চলে গেলে ছবি রঙিন। নোলক পরার পর সে একটি সেলফি নেয়। নেওয়া একটি অপেক্ষা আর দ্যাখো ঝড় লাইকের


রঙের ভিতরে ভালোবাসার হৃদয় বিস্কুট। টুকরো হচ্ছে দাঁতে। তেমন নিষ্ঠুর হলে প্রজাপতির 

ডানা ধরা থাকে কাঠের বাক্সে


কেশ থেকে তুমি নেমে এসেছো 

সাদা ভাতের দানায় ছোঁয়াটুক 

জারি থাক তবে



3

অক্ষর লিপি 


কালো বোর্ডের উপর 'ঈ' দেখে 

ঈশ্বর অনুভূত হলে হেসে ফেলে রোদের পাঠশালা আর বেঞ্চির তাল আর দুয়ো


দুই শব্দটির ভিতরে এক আর একের মিলন লিখলে মনের ঘরে একটা অদ্ভুত যোগাযোগ হয় কিন্তু কখন বিয়োগ এসে শুধু শূন্য রেখে যায় আকাশশ্লেটে


টের পাই তোলপাড় ছন্দের ভুল হলে ছন্নছাড়া গাছটি পাখি হারায় আর সমস্ত রায় বিরুদ্ধে গেলে ঝরে পড়ে শেষ অন্তর্বাস


সইতে পারার কথা মা বলেছিল বেশ জোরেই অসহ্য অবস্থায় দাঁড়িয়ে



4.

অক্ষর লিপি 


সকালকে রান্নাঘর দিলে হেসে ওঠে পঞ্চ ব্যঞ্জন। নজরওয়ালীও। ওয়াহ এভাবেও হয় যখন গরম তেলে সাঁতলায় হিমেল মাছের শরীর


রকম কম না। নানা মশলা ছড়িয়ে আদাব জানায়। নাইবার আগে পড়ে যায় আদা ও পাঁচ ফোড়ন । নশ্বর শরীর জিরা ও হলুদে কিছুটা মজা রাখে


খেতে খেতে সবজি সাদা ভাতকে যাদু শেখায়। খায় আবার খাওয়ায়। আয় বলে ডাকার ভিতরে লাবণ্য বড়ো আন্তরিক


ক কেন্দ্রের বেতারে আবার ফিরেছে বুঝি অনুরোধের আসর



HOME

এই লেখাটা শেয়ার করুন